অনলাইন মোবাইল লোন বাংলাদেশ ২০২৩

আপনাদের জীবনের যখন প্রথম ব্যবসা শুরু করতে যান তখন অনেক টাকার প্রয়োজন হয়। ২ লাখ টাকার ব্যবসা যদি আপনি শুরু করতে চান আপনি যদি মধ্যবিত্ত হন তাহলে আপনার অবশ্যই অনেক টাকার প্রয়োজন হবে। এখন আপনার টাকার প্রয়োজন হবে তখন আপনি অবশ্যই ব্যাংক থেকে লোন নিতে চাইবেন। কিন্তু আপনি যখন ব্যাংক থেকে লোন নিতে যাবেন তখন অনেক কাগজপত্র প্রয়োজন হয় এবং সময়ের। আপনি চাইলে অনলাইন মোবাইল থেকে লোন নিতে পারেন।

মোবাইন লোন আবেদন

  • প্রথমে আপনাকে ইনস্ট্যান্ট লোন অ্যাপ ডাউনলোড করে নিতে হবে গুগল প্লে স্টোর থেকে।
  • এরপর আপনার মোবাইল লোন নম্বর আর এরিয়া পিন কোড এন্টার করুন।
  • আপনার ব্যক্তিগত,বৃত্তিগত এবং আর্থিক বিবরণ দিন।
  • আপনার আধার কার্ড নম্বর/ প্যান এন্টার করুন।
  • আপনি কোন কাজ করেন সেই পেশা এবং কোম্পানির ঠিকানা এন্টার করুন।
  • আপনার মোবাইল লোনের পরিমাণ লোন ইএমআই ক্যালকুলেটর ব্যবহার করে নিজের মনের মত করে নিন।

মানুষ ব্যক্তিগত ব্যবসা করার জন্য অনেক সময় লোন নিয়ে থাকে। লোন মানুষ তখনই যখন তাদের নিজের কাছে টাকা থাকে না। কয়েক বছর আগে আমাদের ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে ব্যবসা করতে হতো। ব্যাংক থেকে লোন নিতে হলে কিছুদিন সময় লাগে। এজন্য আমরা ব্যবসার দিক থেকে অনেক পিছিয়ে যাই। কিন্তু বর্তমান যুগে আপনি অনলাইন মোবাইল থেকে লোন নিতে পারবেন খুব সহজে। অনলাইনে মোবাইল থেকে লোন নেওয়ার জন্য কিভাবে আবেদন করতে হয় সেটি জানাতে চেষ্টা করেছি।

বিকাশ থেকে মোবাইল লোন

  • প্রথমে আপনাকে আপনার বিকাশ এ্যাপ এ গিয়ে দেখতে হবে লোন বাটন অথবা লোন আইকন আছে কিনা।
  • এরপর, আপনি একটি E-KYC   From ( Know Your Customer From ) দেখতে পাবেন এবং আপনাকে সেই ফরম ফিলাপ করতে হবে।
  • ফরমটি আপনার সব ইনফরমেশন দিয়ে এরপর আপনার সাহায্যে ফরমটি সিটি ব্যাংকের কাছে সাবমিট দিতে হবে।
  • ফরমটি সাবমিট হওয়ার পর আপনি যদি লোন পাওয়ার যোগ্য না হন তাহলে আপনার বিকাশ একাউন্টে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।
  • লোনের টাকা সাথে সাথে আপনি একটা পিন নম্বর পাবেন সেই পিন নম্বরটি আপনি টাকা উঠাতে পারবেন।

আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না যে বিকাশ থেকে লোন পাওয়া যায়। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সিটি ব্যাংকের ধারা চালু হয়েছে সমান্তরাল ফ্রী ডিজিটাল লোন। আপনি এই লোন উঠাতে পারবেন শুধু বিকাশ থেকে। আপনি এখান থেকে সর্বোচ্চ ২০ হাজার টাকা লোন নিতে পারবেন। বিকাশ কর্তৃপক্ষ কিন্তু সকল ব্যক্তিকে লোন প্রদান করে না। মূলত যারা বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করে এবং অনেক টাকা লেনদেন করে শুধু তাদেরই বিকাশ অ্যাপ লোন দেয়। এজন্য অবশ্যই আপনাকে লোন উঠাতে হলে বিকাশ অ্যাপ এ বেশি বেশি টাকা লেনদেন করতে হবে।

মোবাইল থেকে লোন নেওয়ার বয়সসীমা কত

  • মোবাইল থেকে লোন নিতে হলে আপনার অবশ্যই ১৮ বছরের ওপরে হতে হবে।
  • ১৮ বছর থেকে শুরু করে ৬০ বছর পর্যন্ত যাদের বয়স তাদের লোন দেওয়া হয়।
  • যদি আপনার বয়স ১৮ এর নিচে হয় তাহলে আপনি মোবাইল থেকে লোন নিতে পারবেন না।
  • আবার আপনার বয়স যদি ৬০ বছর এর ওপরে হয় তাহলে আপনি মোবাইল থেকে লোন নিতে পারবেন না।

বর্তমান সময়ে আমরা সবাই জানি অনলাইনের মাধ্যমে সবকিছুই করা যায়। এখন অনলাইনের মাধ্যমে আপনি মোবাইল থেকে লোন নিতে পারবেন। এটা এখন পর্যন্ত অনেকেরই অজানা যে মোবাইল থেকে অনলাইনের মাধ্যমে লোন নেওয়া যায়। মোবাইল থেকে অনলাইন এর মাধ্যমে লোন নিতে হলে আপনার অবশ্যই বয়স থাকা লাগবে। কারণ পর্যাপ্ত বয়স না হলে আপনাকে কখনোই অনলাইন থেকে লোন প্রদান করবে না। আপনাদের জেনে রাখা উচিত যদি আপনারা মোবাইল থেকে লোন নিতে চান তাহলে আপনাদের বয়সসীমা কত হতে হবে। মোবাইল থেকে লোন পেতে বয়স সীমা কত হওয়া প্রয়োজন বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করেছি।

শেষ কথা 

আমাদের বিভিন্ন সময় অনেক টাকার প্রয়োজন হয়। যেমন আপনি যদি কোন ব্যবসা শুরু করেন অথবা বিদেশ যেতে চান তাহলে আপনার অনেক টাকার প্রয়োজন হয়। এই সময় অনেকেই লোন নিতে চায়। বেশিরভাগ মানুষ লোন নেয় ব্যাংক থেকে। ব্যাংক থেকে লোন নিতে হলে অনেক কাগজপত্র এবং সময়ের প্রয়োজন হয়। কিন্তু আপনি মোবাইল থেকে যদি অনলাইনের মাধ্যমে লোন আপনি খুব তাড়াতাড়ি লোন নিতে পারবেন। অনলাইন থেকে কিভাবে আপনারা লোন নিবেন বিস্তারিত পোস্টে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি।